সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে মাধ্যমিকে সফল বাপি। অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা বার্তা সোশাল মিডিয়া

জীবনের সবথেকে বড় পরীক্ষা মাধ্যমিক। এর পরের ধাপ ই হলে উচ্চ মাধ্যমিক। এই দুটি পরীক্ষায় ভালো নম্বর ভবিষ্যতের ভালো ক্যারিয়ার গড়ার রাস্তা খুলে দেয়। অনেকেই এই পরীক্ষায় প্রত্যাশিত নম্বর পায়, অনেকেই পায় না। আজ ওয়েস্ট বেঙ্গল বোর্ডের মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।

আমরা দুটো হাত দুটো পা চোখ কান নাক সমস্ত সচল থাকলেও বারবার কোনো না কোনো অজুহাতে নিজেদের অসফলতা কে আড়াল করতে চাই।কিন্তু এমন অনেক মানুষ আছে যারা বিভিন্ন শারীরিক প্রতিবন্ধকতা কে জয় করে জীবনের বহু পরীক্ষায় সফল হতে পেরেছেন। মাধ্যমিক পরীক্ষায় শারীরিক প্রতি’বন্ধ’কতা কে জয় করে সফল হওয়ার গল্প এর আগেও বহুবার আমরা জেনেছি।

ফের এই বছর একজন ছাত্র নিজের সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে জয় করে মাধ্যমিকে পাস করে পরিবারের মুখ উজ্জ্বল করল।
ছাত্রের নাম বাপি ফকির। ছোটবেলা থেকেই তার দুটি অচল, শরীরের বিভিন্ন অ’ঙ্গ-প্রত্য’ঙ্গ সঠিকভাবে কাজ করে না। উঠে বসতে পারে না বাপি।

এমত অবস্থায় বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে
ডিহিকলস হাইস্কুল থেকে সে এ বার মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছে। পরীক্ষা কেন্দ্র মগরাহাট অ্যাংলো ওরিয়েন্টাল ইন্সটিটিউশন, মাধ্যমিক পরীক্ষার দিনগুলোতে মায়ের কোলে চেপে ছাত্রটি মাধ্যমিক পরীক্ষা দিতে যায়। পরীক্ষা দেয় বেঞ্চে কাত হয়ে শুয়ে শুয়ে।

বাপির মা সেরিনা বলেন,”ছোটবেলা থেকেই ছেলের রোগ সারাতে বহু হাসপাতাল ছোটাছুটি করেছি। কিন্তু কোন লাভ হয়নি। ইদানিং বাপির এক পাশে শুয়ে শুয়ে এক কানে ঠান্ডা লেগে গেছে। ঠান্ডা লাগার কারণে সে ওই কানে শুনতে পাচ্ছে না। ডাক্তার দেখিয়েছি। ডাক্তার বলেছেন তানি যন্ত্র লাগানোর জন্য ২৫ হাজার টাকা খরচ হবে। আমার স্বামী পেশায় দরজি। কত টাকা জোগাড় করা আমাদের পক্ষে সম্ভব না”।

ডিহিকলস হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক নুরউদ্দিন গায়েন বলেন, ‘‘ওই ছাত্রের জন্য আলাদা ঘরের ব্যবস্থা হয়েছে। নিয়ম মেনে ৪৫ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়েছে”।অবশেষে ফলাফল ঘোষণা করা হলে বাপির।প্রত্যেকটা সাবজেক্টেই মোটামুটি ভালো নম্বর পেয়ে পাশ করেছে বাপি। বাপির এই নম্বরে খুশি তার মা ও বাবা। ভবিষ্যতে তার পড়াশোনা আরো এগিয়ে নিয়ে যাবার কথা জানায় বাপি।

Related Posts

শারীরিক প্রতিকূলতাকে জয়, শিক্ষকতাকে পেশার মাধ্যমে যেভাবে হাজারো হাজারো গরিব শিশুকে শিক্ষাদান করে যাচ্ছেন তিনি

জীবনে এমন অনেক কিছুই ঘটে যার জন্য আমরা প্রস্তুত থাকিনা,তবুও মেনে নিতে হয়।আবার অনেক সময় জন্মগত কিছু প্রতিবন্ধকতা থাকে যা নিয়মিত স্বাভাবিক জীবনজাপনের ক্ষেত্রে অনেক বাধ সৃষ্টি…

মুদি দোকানীর মেয়ে যেভাবে কঠিন লড়াইয়ে হলেন IAS অফিসার, গর্বিত করলেন বাংলার এই কন্যা

মধ্যবিত্ত বা নিম্নবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসা মেধাবী ছাত্র-ছাত্রী দের কথা আমরা অনেক আগেও অনেকবার শুনেছি। অদম্য ইচ্ছাশক্তি থাকলে সমস্ত বাধা অতিক্রম করা যায়। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা কোনভাবেই…

যে পদ্ধতিতে প্লাস্টিক দিয়ে রাস্তা তৈরি করে ভারত বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিলো

সারা বিশ্বের দূষণের মূল উপাদান হলো প্লাস্টিক। প্লাস্টিকের প্রধান সমস্যা হলো এটি পুনর্ব্যবহারযোগ্য নয়। ২০১৬ সাল থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী ইঞ্জিনিয়াররা সমস্যার সমাধানের পথ দেখিয়েছেন বিশ্বকে।পুনর্ব্যবহারযোগ্য নয় এমন…

বাড়িতে তুলসী গাছ থাকলে এই ৫টি কাজ ভুলেও করবেন না, সংসারে অমঙ্গলের ছায়া ঘিরে ধরবে

প্রত্যেক হিন্দু গৃহস্থ বাড়িতে তুলসী গাছ দেবী হিসেবে পূজিত হন। বহু পুরনো যুগ থেকেই সন্ধ্যেবেলা তুলসী মঞ্চে প্রদীপ দিয়ে শুরু হয় সন্ধ্যারতি।হিন্দু ঘরের নারীরা সংসারে সুখ এবং…

ব’জ্রপা’তে বিহারে নিহ’ত ৮৩, উত্তরপ্রদেশে ২৪

বিহার এবং উত্তর প্রদেশের অনেক জেলায় বজ্রপাতের খবর পাওয়া গেছে। বিহারের ব’জ্রপা’তে ৮৩ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের সবচেয়ে বেশি দেওরিয়ায় নয়জন মা’রা গেছেন। মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার কুমারের…

এক শরী’রে দুই প্রা’ণ, অথচ দুজনেই ভিন্ন বিষয়ের শিক্ষক! একজন গণিতের একজন ইংরেজি বিষয়ে শিক্ষকতা করেন

১৯৯০ সালের ৭ মা’র্চ জার্মানির মিনেসোটায় পেটি হেনসেলের দুই কন্যা জন্ম দিয়েছিল। তারা দুই বোন, তিনি নিজের সন্তানদেরকে ১০ মাস গ’র্ভে ধারণ করেছেন। একবারও ভাবেননি তাদের সন্তান…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *