Breaking News

ভারতের এই পাঁচ জাগ্রত মন্দিরের অলৌকিক কাহিনী শুনলে গা কাঁটা দিয়ে উঠবে। জানুন এক্ষুনি

বিশ্বের মধ্যে অন্যতম রহস্যময় দেশ ভারত৷ বিভিন্ন ধরণের পৌরাণিক কাহিনীর জন্য বিখ্যাত এই দেশের ইতিহাস৷ ভারতের বিভিন্ন ধর্মীয় স্থান ঘিরেও রয়েছে রহস্যজনক বেশ কিছু কাহিনী৷ এই সমস্ত স্থানগুলির মধ্যে রয়েছে-

এএমবি সাহিব গুরুদ্বারা:মোহালি জেলায় অবস্থিত এটি৷ ১৯৫৯স্থানে স্থাপন করা হয়েছে এটি৷ শিখের সপ্তম গুরু গুরু হর রাই এই জায়গাটিতে আসেন পরিদর্শন করার জন্য এবং এখানেই তিনি তাঁর শিষ্য ভাই কুব়রামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন৷ এই গুরুদ্বারাটি ঘিরেই রয়েছে একটি অদ্ভুত বিষয়৷ এই গুরুদ্বারা চত্বরেই রয়েছে একটি আম গাছ৷ যেটিতে সারাবছর জুড়েই দেখা যায় প্রচুর আম৷

যোগান্তি মন্দির: এটি অন্ধ্রপ্রদেশে অবস্থিত৷ এই মন্দিরের সামনেই রয়েছে নন্দী দেবতার মূর্তি৷ কথিত আছে, এই দেবতার আকৃতিই দিনকে দিন বৃদ্ধি পায়৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, এই মন্দিরটিতে এই দেবতার আক়ৃতি একেবারে প্রথমে অনেকটাই ছোট ছিল৷ প্রত্নতাত্ত্বিকবিদ-দের মতে, প্রতি ২০বছরে এই মূর্তিটি এক ইঞ্চি করে বৃদ্ধি পায়৷

কামার আলি দরবেশ দরগা:পুনেতে অবস্থিত এই মন্দিরটি৷ এই মন্দিরের মাঝে রয়েছে একটি ৯০কিলো ওজনের পাথর৷ কথিত আছে, ১১জন লোক একটি আঙ্গুলের সাহায্যেই ৯০কিলো ওজনের এই পাথরটিকে উপরে ছুঁড়তে সক্ষম৷ এই ১১জনকে এই পাথরটি তোলার আগে সমোস্বরে চিৎকার করে কামার আলি দরবেশের নামোচ্চোরণ করতে হবে এক নিশ্বাসে৷ আর তার পরেই ঘটবে সেই অলৌকিক কাণ্ড৷ প্রায় ১০ থেকে ১১ফিট উপরে উঠবে ওই পাথরটি৷

হজরত শরফাউদ্দিন শাহউইলিয়ত:আমরোহাতে অবস্থিত এটি৷ এটি দাদা শাহউইলিয়াত নামেও পরিচিত৷ এই মাজার শরিফে রয়েছে একটি কালো কাঁকড়াবিছে৷ এই কাঁকড়াবিছেটিই এখানকার মূল আকর্ষণ৷ তবে, এই মন্দিরটি ভক্তদের উপর কোনও আঘাত আনেনা৷

তাঞ্জোর(Tanjore) গ্র্যানাইট মন্দির:১০০০ বছর আগে তৈরি হয়েছে এই মন্দিরটি৷ যেটি সম্পূর্ণরূপেই গ্রানাইট পাথরের তৈরি৷ এই মন্দিরটির উচ্চতা প্রায় ২১৬ফিট৷ এই মন্দিরটি তৈরির সময় অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্মুখীন হতে হয়েছিল৷

About admin

Check Also

গার্লফ্রেন্ডের উৎসাহ তে আজ IPS অফিসার হলেন, ক্লাস 12th ফেল এই ট্রাক ড্রাইভার।

এক সময় ধনী ব্যক্তিদের বাড়ির কুকুর দেখাশোনা, আবার কখনো ট্যাম্পো চালাতেন, প্রেমিকার উৎসাহে আজ আইপিএস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *