Breaking News

প্রত্যেক রবিবার এই নিয়মগুলো মেনে সূর্যদেবের পুজো করুন, পূরণ হবে সমস্ত মনোবাসনা

রবিবার সূর্য দেবতার নামে পূজো অর্চনা করা হয়। রবিবারের সূর্য দেবতার আরাধনা করা হয় তার আসল কারণ পরিবাবের সুখ, সমৃদ্ধি, বজায় থাকে। এবং শত্রুদের কুনজর যাতে না পরে। পৌরাণিক ধর্মীয় গ্রন্থগুলিতে ভগবান সূর্যদেবের আরঘ্যাদনের বিশেষ তাত্পর্য কথা বলা হয়েছে। প্রতিদিন সকালে তামা পদ্মে জল নিয়ে তাতে লাল ফুল, ধান রেখে এক মন দিয়ে সূর্য মন্ত্র জপ করে ভগবান সূর্যকে অর্ঘ্য অর্পণ করা উচিত। বয়স, স্বাস্থ্য, ধন, শস্য, পুত্র, বন্ধু, গৌরব, খ্যাতি, জ্ঞান, সম্পদ এবং সৌভাগ্য দিয়ে এই অর্ঘ্যদানে ভগবান সূর্য সন্তুষ্ট হন।

সূর্য দেবের উপাসনায় এই নিয়মগুলি অনুসরণ করুন।সূর্যোদয়ের আগে স্নান করে নিজেকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার পর শুদ্ধ বস্ত্র পরিধান করুন।এরপর সূর্যনারায়ণের কাছে তিনবার নামাজ পড়ুন। সন্ধ্যায় আবার সূর্যের উপাসনা করুন এবং নম করুন।শ্রদ্ধার সাথে সূর্যের মন্ত্রগুলি জপ করুন।আদিত্য হৃদয়ের নিয়মিত তেলাওয়াত করুন।

স্বাস্থ্যগত সুবিধাগুলি কামনা, চোখের রোগ এড়াতে এবং অন্ধত্ব থেকে রক্ষা পেতে প্রতিদিন’নেট্রোপনিষদ’ পাঠ করা উচিত।রবিবার যতটা সম্ভব তেল, নুন খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। পরিবারের সকলের সাথে খাওয়ার চেষ্টা করুন।গল্প অনুসারে, একজন বৃদ্ধ মহিলা ছিলেন, তাঁর জীবনের নিয়ম ছিল প্রতি রবিবার সকালে তিনি সকালে স্নান করতেন এবং গোবর দিয়ে ঘর শুচি করতেন। এর পরে, তিনি খাবার প্রস্তুত করতেন, ঈশ্বরের কাছে নৈবেদ্য উত্সর্গ করে নিজের কাছে খাবার উত্সর্গ করতেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে এই কাজটি করে আসছিলেন। এটি করে তাঁর বাড়ি অনেকটাই অর্থ সঙ্কট কেটে যায় এবং পরিবারের সুখ ও সমৃদ্ধি ফিরে আসে ।

পুরাণ মতে, কশ্যপের স্ত্রী অদিতির গ’র্ভে জন্মগ্রহণ করেন দেবতারা। আর তাঁর অপর স্ত্রী দিতির গ’র্ভে জন্মগ্রহণ করেন দৈ’ত্য-দা’নব। দৈ’ত্য-দা’নবেরা অদিতির পুত্রদের নানাভাবে লা’ঞ্ছিত করতে থাকলে, অদিতি পুত্রদের কল্যাণের জন্য সূর্যের তপস্যা আরম্ভ করেন। তাঁর ভক্তিতে তুষ্ট হয়ে, সূর্য আদিতিকে সাক্ষাৎ দেন এবং বর প্রার্থনা করতে বলেন। অদিতি সূর্যের কাছে বলেন, তিনি যেন তাঁর গ’র্ভে জন্মগ্রহণ করে দানবদের হাত থেকে তাঁর ভাইদের রক্ষা করেন ৷ সূর্য তখন নিজের সংস্রাংশরূপে অদিতির গ’র্ভে প্রবেশ করেন ৷

একদা এক রাজা সমস্ত নগরবাসীকে উপবাস রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন। তখন থেকে সমস্ত শহরবাসী এই উপবাস পালন শুরু করে এবং তারা আনন্দ পেয়ে যায়। রবিবারের রোজা সম্পর্কে বলা হয় যে সূর্য অস্ত যাওয়ার পরেই এই রোজা সমাপ্ত হবে। যদি কোনও কারণে সূর্য ডুবে থাকে এবং রোজা ব্যক্তি খাবার খেতে না পারে তবে তার পরদিন সূর্যোদয় না হওয়া পর্যন্ত অনাহার থাকা উচিত নয়। পরের দিন, স্নানের পরে, সূর্যদেবকে জল দেওয়ার পরে, তাদের স্মরণ করার পরে কেবল আপনার খাবার নেওয়া উচিত।

বি:দ্র:- বন্ধুরা উপরের বর্ণিত প্রতিবেদনের যে আলোচনা করা হলো তা সম্পূর্ণ জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে এক্ষেত্রে আপনার সম্পূর্ণ বিশ্বাস ভক্তি ও আন্তরিকতার ওপর নির্ভর করবে। উপরিউক্ত আলোচ্য বিষয় সত্যতা যাচাই করার ক্ষেত্রে online খবর নিউজ পোর্টালটি কোন ভাবে দায়ী নয়। যদি এই বিষয়ে আপনার মনে কোন সন্দেহ থেকে থাকে তাহলে আপনি কোন বিশেষজ্ঞ দ্বারা এর সত্যতা যাচাই করে তারপরে উপরের নিয়মগুলি পালন করবেন।প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে লাইক ও শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন।

About admin

Check Also

রাতে রুটি খান ? তাহলে এই বিষয় গুলি মাথায় রাখবেন নাহলে বিপদে পড়তে হবে ।

রুটি মানুষের গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োজনীয় বস্তু। কারণ ক্ষুধা মানুষের কাছ থেকে ঠিক এবং খারাপের পার্থক্য কেড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *