Breaking News

অন্য গ্রহ থেকে সূর্যাস্ত কতটা সুন্দর লাগে নাসা প্রকাশ করলো সেই মহাজাগতিক ভিডিও , এই বিরল দৃশ্য দেখলে আপনার চোখ ধাঁধিয়ে যাবে,

পৃথিবীতে প্রত্যেক সূর্যাস্ত যে কোনো জায়গা থেকেই দর্শনীয়ভাবে দেখতে সুন্দর।আমরা প্রায় প্রতিদিনই সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দেখি। যদিও তা আরও আকর্ষণীয় হয় যদি নতুন কোনো মনোরম জায়গা থেকে ত প্রত্যক্ষ করা যায়। মনোরম জায়গার অভাবে জন্য তার সৌন্দর্য অনেক সময় চোখে ধরা পড়ে না।যদি এই অবস্থানটি পৃথিবীতে আদৌ না হত? আচ্ছা শুক্র থেকে যদি আমরা সূর্যাস্ত দেখি তবে কী হবে?

যদি এই প্রশ্নটির ওপর ভিত্তি করে মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা একটি অ্যানিমেশন নিয়ে এসেছে। এই অ্যানিমেশন টি ঐবরস্নের উত্তর গুলি প্রকাশ করতে পারে বলে মনে করা হয়।বলা হয়, নাসার সূর্যাস্ত সিমুলেটরটি মেরিল্যান্ডের গ্রিনবেলেটের নাসার গড্ডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারের গ্রহ বিজ্ঞানী গেরোনিমো ভ্যালানুয়েভার তৈরি করেছেন। সৌরজগতে সূর্য থেকে সপ্তম গ্রহ ইউরেনাসে সম্ভাব্য ভবিষ্যতের মিশনের জন্য একটি কম্পিউটার মডেলিংয়ের সরঞ্জাম তৈরি করার সময় ভিলানুয়েভা এই অ্যানিমেশন নিয়ে এসেছিলেন।

ফলস্বরূপ অ্যানিমেশনটি হল “রঙের মনোরম প্যালেট” যা সূর্যাস্তের সময় এই গ্রহে দাঁড়িয়ে থাকা প্রত্যেকেই দৃশ্যমান হতে পারে।একটি ভিডিওটির মাধ্যমে নাসা আমাদের পৃথিবীর উপগ্রহ, শুক্র, মঙ্গল, ইউরেনাস এবং শনির বৃহত্তম উপগ্রহ টাইটান থেকে সূর্যাস্ত দেখতে কেমন হবে তার এক ঝলক দেখা গেছে।এই মহাজাগতিক দৃশ্য গুলি সূর্যাস্তের সময় সূর্যের আলো থেকে দূরে সরে যাওয়ার সাথে সাথে, বায়ুমণ্ডলে অণুগুলির ধরণের উপর নির্ভর করে। ফোটনগুলি তাদের শক্তির উপর নির্ভর করে বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে পড়ে।এর ফলে, যে কোনো স্থানের দর্শনীয় উষা প্রতিটি একে অপরের চেয়ে আলাদা।

যদিও পৃথিবীতে সূর্যাস্তের সাথে বরাবরই পরিচিত।অন্য গ্রহগুলিতে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে এই অ্যানিমেশন ভিডিও। উদাহরণস্বরূপ, মঙ্গল গ্রহে একটি সূর্যাস্ত একটি নীল বর্ণ থেকে নীল বর্ণে পরিণত হয়েছে কারণ মার্টিয়ান ধূলিকণা যা নীল রঙকে আরও কার্যকরভাবে ছড়িয়ে দেয়। ইউরেনাসের একটি হ’ল একটি উজ্জ্বল নীল রঙের গ্রহ, যা রয়াল ব্লু হয়ে যায়।হাইড্রোজেন, হিলিয়াম এবং মিথেন সমৃদ্ধ গ্রহের বায়ুমণ্ডলের সাথে সূর্যের আলোর মিথস্ক্রিয়া থেকে ইউরানীয় সূর্যাস্তের রঙগু’লি পায়। এই উপাদানগু’লি আলোর দীর্ঘ-তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের লাল অংশকে শোষণ করে এবং ছোট-তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের নীল এবং সবুজ অংশগু’লিকে ছড়িয়ে দেয়।

দেখুন সেই ভিডিও:-

সূর্যাস্ত সিমুলেশন, মূলত একটি আকাশের সিমুলেশন, এখন নাসা গড্ডার্ডে ভিলানুয়েভা এবং তার সহকর্মীদের দ্বারা নির্মিত প্ল্যানেটারি স্পেকট্রাম জেনারেটর নামে একটি বিস্তৃত ব্যবহৃত অনলাইন সরঞ্জামের পথ খুঁজে পেয়েছে।এই জেনারেটরের সাহায্যে বিজ্ঞানীরা গ্রহ, এক্সোপ্ল্যানেট, চাঁদ এবং ধূমকেতুগু’লির বায়ুমণ্ডলগুলির মাধ্যমে আলোর সংক্রমণকে প্রতিলিপি তৈরি করেন। তারপরে তারা তাদের বায়ুমণ্ডল এবং পৃষ্ঠতল ঠিক কিভাবে কাজ করে তা বোঝাতে সাহায্য করে।

About admin

Check Also

BIG BREAKING: চীনের ওপর ভারতের ডিজিটাল স্ট্রা’ইক, টিকটক সহ 59 টি চায়না অ্যাপ ব্যান করল ভারত সরকার! রইলো বিস্তারিত

করার মত মহামা’রীর পরেও চীনের বিরু’দ্ধে কোনো রকম পদক্ষেপ নেয়নি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু ভারত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *