Breaking News

বলিউডের এই 10 অভিনেতা যারা ট্যালেন্টের দ্বারা লড়াই যোগ্যতা অর্জন করেছেন, তাদের জীবনে কাহিনী বিশ্বকে অনুপ্রাণিত করেছে

জিভ দিয়েছেন যিনি, আহার দিবেন তিনি। ইন্ডাস্ট্রিতে টিকে থাকতে গেলে, সঙ্গে সঙ্গে সমান অধিকার বজায় রাখতে এই ধারণার বদল ঘটানো দরকার। বহিরাগত এবং অভ্যন্তরীণ বিত’র্ককে ঘিরে নেতিবাচকতার মধ্যে উচ্চাকাঙ্ক্ষী অ’ভিনেতাদের আসল যাত্রার পথটি সত্যই উচ্চ স্থানীয় ব্যক্তিত্ব রায় স্থির করে? সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃ-ত্যুর পর থেকে নেপোটিজম নিয়ে একের পর এক তথ্য উঠে আসছে বলিউডের অন্দরমহল থেকে। বলিউডের বিশিষ্ট অ’ভিনেতা অভিনেত্রী থেকে শুরু করে চিত্রপরিচালক প্রত্যেকেই স’রব হয়েছেন নেটিজেন এর বিরুদ্ধে। নেটিজেন বিত’র্ক দিনের পর দিন আরো জটিল থেকে জটিলতর হয়ে উঠছে।এটি প্রায়শই বলা হয় যে, বহিরাগতরা সমান সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়। তবে আমাদের সম্মুখে এমনও অনেক উদাহরণ রয়েছে যাঁরা শিল্পের অদ্ভুত উপায় থাকা সত্ত্বেও, আটকে ছিলেন, কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন এবং হাল ছাড়েন নি।জীবন যুদ্ধে জয়লাভের দিক উন্মোচিত করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করে গিয়েছেন তারা। এই অভিনেতারা কেবল আশেপাশে থাকেননি। কখনো কখনো টিকে থাকার চেষ্টায় বেছে নিতে হয়েছে অন্য কোন চাকরির পথ। ইন্ডাস্ট্রিতে নিজের অধিকার ছিনিয়ে নিতে দিনের পর দিন সংগ্রাম করে যেতে হয়েছে তাদের। এই অভিনেতা প্রমাণ করে যে, কঠোর পরিশ্রম আপনার জীবনে আপনি যা যা কামনা করেছেন তা আপনি একটু চেষ্টা করলেই অর্জন করতে পারেন।

১)পঙ্কজ ত্রিপাঠি:-এমনই একজন ব্যক্তিত্ব পঙ্কজ ত্রিপাঠী কে আমরা সকলেই জানি।রাতে হোটেলের রান্নাঘরে কাজ করতেন এবং সকালে থিয়েটার করতেন। তিনি দিল্লি ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা (এনএসডি) কে বেছে নিয়েছিলেন। যেখানে ভর্তির জন্য প্রাথমিক প্রয়োজন স্নাতক ডিগ্রি ছিল। কলেজে তিনি বিজেপির ক্যাম্পাস শাখা আখিল ভারতীয় ছাত্র পরিষদ (এবিভিপি) এ যোগ দিয়েছিলেন এবং ছাত্রদের আন্দোলনে অংশ নেওয়ার কারণে এক সপ্তাহের জন্য জেল হয়েছিলেন।

২০০৪ সালে এনএসডি-তে কোর্স শেষ করার পরে, তিনি পকেটে ৪৬,০০০ টাকা নিয়ে ওই বছর ১ অক্টোবর মুম্বাইয়ের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিলেন। তিনি একবার স্মরণ করেছিলেন কিভাবে ২৫ শে ডিসেম্বরে মধ্তাঁর কাছে কেবল তাঁর দশ টাকা পড়ে ছিল। টানা আট বছর ধরে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করতে করতে তার জীবনে ‘গ্যাংস অফ ওয়াসেপুর’ সিনেমা দিয়ে চরম পরিবর্তন ঘটেছিল।

২)বিক্রান্ত ম্যাসি :-বিক্রান্ত ম্যাসি যিনি প্রশিক্ষিত ব্যালেট ডান্সার নামে পরিচিত, তিনি শিয়মাক দাবারের সাথে কাজ করেছিলেন এবং তাঁর শো ধুম মাচাও ধুমে কোরিওগ্রাফার হিসাবে অভিনয় করেছিলেন। ২০০৪ সালে কাহন হু মেইনের মাধ্যমে টেলিভিশনে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। তিনি টেলিভিশনে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন ২০০৪ সালে। “ধরম বীর”, “বালিকা বধু”, “বাবা আইসো ভার ঢুণ্ড” এবং “কুবুল হাইয়ে”র মতো বিভিন্ন সিরিয়ালে তিনি অভিনয় করেছিলেন।কালার্স টিভিতে টেলিভিশন শো বালিকা বধুতে তিনি শ্যাম মদন সিংয়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

৩) রনদীপ হুডা:-স্কুল শেষ করার পরে রনদীপ হুডা ১৯৯৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় মেলবোর্নে চলে আসেন। তিনি বিপণনে স্নাতক এবং ব্যবসায় পরিচালনা ও মানবসম্পদ পরিচালনায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। এই সময়কালে, তিনি একটি চীনা রেস্তোঁরা, একটি গাড়ি ধোয়া, ওয়েটার হিসাবে এবং দু’বছর ট্যাক্সি ড্রাইভার হিসাবে কাজ করেছিলেন।২০০০সাল নাগাদ রণদীপ ভারতে ফিরে আসেন এবং একটি এয়ারলাইন্সের বিপণন বিভাগে কাজ করেছিলেন।

তিনি পরবর্তী সময়ে দিল্লির অপেশাদার থিয়েটারে মডেলিং এবং কাজ শুরু করেছিলেন।টু টিচ হিজ ওয়ান নাটকটির মহড়া করার সময় পরিচালক মীরা নায়ার তার আসন্ন ছবিতে একটি ভূমিকার জন্য রণদীপ কে অডিশনের জন্য যোগাযোগ করেছিলেন। ২০০১ সালে মীরা নায়ারের “মনসুন ওয়েডিং” এর মাধ্যমে তার দুর্দান্ত আত্মপ্রকাশের পরে, তিনি ভেবেছিলেন তার জীবন নির্ধারিত। ২০১৪ সালে তিনি বলেছিলেন, “এর পরে, আমি ধরে নিয়েছিলাম যে আমাকে কেবল ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে হবে এবং লোকেরা আমাকে দেখার জন্য প্রেক্ষাগৃহে ভিড় করবে,” তিনি বলেছেন,যাইহোক জীবন কোনও ইচ্ছা-দান কারখানা নয়”। তিনি পরবর্তী টানা চার বছর বেকার হয়ে কাটিয়েছিলেন।

রাজকুমার রাও:- এরপর যার কথা না বললেই নয় তিনি হলেন রাজকুমার রাও। তিনি খুব সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছেন। অবসর সময়ে মাঝেমাঝেই পূর্বের সময়গুলি স্মরণ করিয়ে দেয় এবং তার শিক্ষকরা দু’বছরের জন্য তার স্কুলের ফি প্রদান করেছিলেন। মুম্বইয়ে তাঁর প্রাথমিক দিনগুলি পুনরায় প্রতিষ্ঠিত করে তিনি একবার বলেছিলেন, “আমি যখন শহরে এসেছিলাম তখন আমরা সত্যিই একটি ছোট্ট ঘরে থাকতাম। আমি আমার শেয়ারের ৭০০০ টাকা দিয়েছিলাম যা আপনার কাছে অনেক বেশি। বেঁ’চে থাকার জন্য আমার প্রতি মাসে প্রায় ১৫-২০০০০টাকার প্রয়োজন ছিল এবং আমার অ্যাকাউন্টে আমার কাছে কেবল ১৮ টাকা বাকি ছিল এমন নোটিফিকেশন পেতাম। আর আমার বন্ধুর কাছে ২৩ টাকা। এরপর তিনি এফটিআইআইতে ভর্তি হন। তিনি বলেন, “আমরা টাকা ধার করতাম। এবং অন্যান্য সময়, আমরা কেবল তাদের বাড়িতে গিয়ে মাঝে মাঝে তাদের খাবার ভাগ করে দিতাম। আমার কাছে যথাযথ টি-শার্ট কিনতেও পর্যাপ্ত টাকা ছিল না। আমার এক বন্ধু আছে, যার নাম বিনোদ,তিনিও একজন অভিনেতা এবং আমরা আমাদের অডিশনের জন্য বাইকে করে যেতাম। কীভাবে দেখতে হবে, কী পরবেন সে সম্পর্কে উপস্থাপনা সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। আমাদের চারপাশের দূষণের সাথে, আমরা কেবল নেমে এসে গোলাপজল দিয়ে অন্যের মুখগুলি পরিষ্কার করতাম এবং ভাবতাম যে এটি আমাদের নিজের সেরা সংস্করণ।” তিনি স্বীকার করেছেন যে তাঁর কোনও পরিকল্পনা ছিল না। অডিশনের জন্য ক্রমাগত খোঁজ চালিয়ে যেতেন এবং বিজ্ঞাপন ও কাস্টিং ডিরেক্টরদের সাথে সাক্ষাত করতেন।

তিনি একবার বলেছিলেন, “তারা আমাকে ছোট ছোট ভূমিকার জন্য ডেকেছিল এবং আমি তাদের বোঝাতে চেষ্টা করেছিলাম যে, আমাকে বড় চরিত্রগুলির জন্য অডিশন দিতে দিন। কিন্তু আমাকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। তবে আমি ইচ্ছা হারিয়ে ফেলি নি। অবশেষে আমি অতুল মঙ্গিয়ার সাথে যোগাযোগ করি। অবশেষে তিনি আমাকে প্রেম সে-ক্স অর ধোকার অডিশনে ডাকলেন। এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও তাদের তরফ থেকে আর কিছু শুনতে পাইনি। তখন আমি মনকে জিজ্ঞাসা করি, ‘তারা কি ডাকবে?’ তারপরে যা ঘটেছিল আমি যা কিছু কাজ করেছি তার সবই সেই মুহুর্তে শেষ হয়েছিল। যখন আমি বাড়িতে ছিলাম আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কলটি পেয়েছিলাম। সেই শব্দগু’লি ছিল ,”আপনি ছবিটি পেয়েছেন”!’ সঙ্গে সঙ্গে মাকে ডাকি এবং আনন্দাশ্রুতে ভেসে যাই।”

কৃতি কুলহারি:-কৃতি কুলহারি, তিনি থিয়েটার এবং টিভি বিজ্ঞাপন দিয়ে তার ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন। তিনি যাত্রী নামে একটি হিন্দি থিয়েটার গ্রুপে এক মাসের অভিনয় হোয়াটসঅ্যাপ করেছিলেন। তিনি তার পরে তিনটি নাটকে কাজ করেছেন। যাত্রী গ্রুপের সাথে চিন্তা ছোড় চিন্তামণি, বিভিন্ন প্রযোজনার সাথে “আজিমোর শেহেনশাহ” এবং যাত্রীর গ্রুপের সাথে “সাখারাম বাইদার” একটি হিন্দি রূপান্তর। লোটাস মিউচুয়াল ফান্ডস, ট্র্যাভেল গুরু, ভিডিওকন এয়ার কন্ডিশনার, প্যারাসুট গর্জিয়াস হামেশা ক্যাম্পেইন, আইসিআইসিআই ব্যাংক, কেয়া স্কিন ক্লিনিক, তাজমহল চা (ভারতীয় অভিনেতা সাইফ আলি খান সহ), এরিথ ফেস ওয়াশ, ভার্পুলের রেফ্রিজারেটর (ভারতীয় অভিনেতা অজয় ​​দেবগন এবং কাজল সহ),

স্পাইস মোবাইল, ভার্জিন মোবাইলস (ভারতীয় অভিনেতা রণবীর কাপুরের সাথে), ক্লোজ-আপ, জে কে হোয়াইট সিমেন্ট এবং টিক ট্যাক মাউথ ফ্রেশনার কোম্পানিগু’লির বিজ্ঞাপনে অংশ নিতেন। নিভা ভিজেজ স্পার্কলিং গ্লোইং ফেস সহ বিভিন্ন দু’বছর ধরে কুলহারিকে বিউটি ব্র্যান্ডেড কোম্পানী গু’লির এডভার্টাইজিং এ তাকে দেখা যেত। এছাড়াও, তিনি মিউজিক ভিডিওগু’লির একটি অংশ ছিলেন।গিপ্পি গ্রেওয়ালের লেখা দেশী রকস্টার ২ অ্যালবামের “হিক ভিচ জান”, গায়ক অভিজিৎ সাওয়ান্তের “জুনুন” এবং বাবু মানুর “মিত্রান দি চত্রী” তে তিনি ছিলেন।

সায়নী গুপ্তা:-দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামাতে নাম লেখানোর পরিকল্পনা ছিল সায়নী গুপ্তার।তবে এই পরিকল্পনাটি পরিবর্তন করে বরং এলএসআর-এর নৃত্য সমাজের জন্য দিনে ১৪ ঘন্টা নেচেছিলেন। মান্ডির বাড়ীতে বেড়াতে গিয়ে তিনি স্প্যানিশ হাবিব তানভীর এবং এমকে রায়নার সাথে বন্ধুত্ব করেছিলেন। তিনি নিজের পেশাদার থিয়েটার সংস্থাও চালু করেছিলেন।ভারতের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউট থেকে স্নাতক, তিনি ২০১২ সালে দ্বিতীয় বিবাহ ডট কম-এ আত্মপ্রকাশ করেছিলেন।

সায়ানী একবার প্রকাশ করেছিলেন যে যশরাজ ফিল্মসের কাস্টিং দল ফেসবুকে তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করতে ব্যর্থ হওয়ার পরে তার সাথে যোগাযোগ করেছিল এবং মনে করেছিলেন যে তিনি বেশ “ভাগ্যবান”। তিনি আরো স্বীকার করেছেন যে, “ওয়াইআরএফ টিম আমার পুরানো নম্বরে আমার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছিল। তারা শেষ পর্যন্ত আমাকে ফেসবুকে লিখেছিল,” সায়নি বলেছেন। “যখন আমি ‘ফ্যান’-এর জন্য অডিশন দিয়েছিলাম তখন আমি জানতাম না যে এতে শাহরুখ খান কীভাবে থাকবেন। দু’মাস অডিশন দেওয়ার পরে আমাকে শানু শর্মা (ওয়াইআরএফের) থেকে একটি ফোন পেয়েছিকম, যে আমি নির্বাচিত হয়েছি। এটাই যখন তারা আমাকে সম্পর্কে বলেছিল সিনেমাটি এবং এসআরকে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছে।”

সঞ্জয় মিশ্র:-এরপর বলা যায় সঞ্জয় মিশ্রের নাম।তিনি একবার তিনি প্রকাশ করেছেন যে, দশম শ্রেণির পরীক্ষার্থীদের দু-দুবার ব্যর্থ হয়েছেন। তার বাবা ভবিষ্যৎ নিয়ে খুবই চি’ন্তায় ছিলেন। তিনি ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামায় ভর্তি হন। নিজের প্রথম দিনগু’লির কথা বলতে গিয়ে তিনি একবার বলেছিলেন, “আমি যখন ১৯৯১ সালে মুম্বাই এসেছিলাম তখন আপনাকে কৌতুক অভিনেতা বা ভিলেন বা নায়ক হতে হয়েছিল। যদিও লোকেরা আমাকে এই বিভাগগু’লির মধ্যে কোনওটিতে রাখতে পারেনি। পরিচালক আমারএনএসডি ব্যাচমেট তিগমংশু ধুলিয়া আমাকে একটি টেলিভিশন সিরিয়াল অফার করেছিলেন।

১৯৯১থেকে ১৯৯৯ এর মধ্যে, আমি আলোক থেকে শিল্পের দিক থেকে ক্যামেরাকর্ম পর্যন্ত সবকিছুতে হাত দিয়ে চেষ্টা করেছি। আমি ফটোগ্রাফিও করেছি এবং কিছু অর্থ উপার্জন করেছি। যদি আমি বাড়িকে মাস করতাম তাহলে আমি অন্ধেরিতে স্টেশনে যেতাম, যেখানে দিল্লিগামী রাজধানী ট্রেনটি হর্ন বাজিয়ে চলে যেত।”১৯৯৯ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপের সিরিজ চলাকালীন, মিশ্রের অ্যাপল সিং ইএসপিএন স্টার স্পোর্টসের জন্য বিজ্ঞাপনগু’লি এত জনপ্রিয় হয়েছিল যে এই চরিত্রটি চ্যানেলের মুখ হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছিল।

বোমান ইরানি:-বোমান ইরানি, স্কুলের পরে কোলাবার কিংবদন্তি তাজের ওয়েটারের কাজ করবেন বলে তিনি হোটেল তাজমহলে টেবিলের জন্য অপেক্ষা করেছিলেন।দু’বছর পরে, যখন তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে তিনি জীবনের আরও বেশি কিছু অর্জন করার উদ্দেশ্যেই এসেছিলেন। তখন তিনি হাল ছেড়ে দেন।পরিস্থিতিগত স’ঙ্কটের পরেও তাকে পারিবারিক ওয়েফারের ব্যবসা পরিচালনা করতে হয়েছিল। তবে যেহেতু তিনি সৃজনশীল তৃপ্তির জন্য আকুল হয়েছিলেন তাই তিনি অতিরিক্ত সময় লেখার কাজে দিতেন।

১৪ বছর ধরে ব্যবসা চালানোর পর স্পোর্টস ফটোগ্রাফি করতে শুরু করেন তিনি। বোমান তাঁর অভিনয়ের স্বপ্নটি উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন এবং কোরিওগ্রাফার শিয়মাক দাভার তাকে তাঁর থিয়েটার এবং থিয়েটার কিংবদন্তি অ্যালিক পদমসির সাথে পরিচয় করার জন্য আরও এক ধাপ এগিয়ে গিয়েছিলেন।তাঁর প্রথম নাটকটি তার প্রশংসা অর্জন করতে পারেনি। কিন্তু “আই অ্যাম নট বাজিরাও” নাটকটি তার সাফল্যকে বলিউডে প্রতিষ্ঠা করে তোলে।

আরশাদ ওয়ারসি:-বড় হওয়ার সময় আরশাদ ওয়ারসি একটি ভাল পরিবারে ছিলেন তবে ১৪ বছর বয়সে তিনি তার পিতাকে হারান। তাঁর পুরো জীবন উল্টো পথে প্রবাহিত হয়। তার বাবা অনেক সম্পত্তি এবং পরিবার ছেড়ে চলে গেলেও তাকে সেইসব বিক্রি করতে হয়েছিল। মায়ের চিকিৎসার জন্য সব বন্ধ করতে হয়েছিল। পরিবারকে দুর্দ’শাগ্রস্থ জীবন ও নূন্যতম সুবিধা পাননি তারা। কোন কোন দিন শুধু নুন ভাত খেয়ে কাটাতে হয়েছে। স্কুল ছাড়ার পরে আরশাদকে নিজেকে, তার মা এবং তার ভাইকে দেখাশোনা করতে অদ্ভুত চাকরির আশ্রয় নিতে হয়েছিল।

তিনি একটি ফটো ল্যাবে কাজ করেছেন, এবং ক্যামিকেল ব্যবহার করে চলচ্চিত্র এবং ছবি তোলেন। এমনকি কিছু সময়ের জন্য তিনি বান্দ্রার আশেপাশে বাসে কসমেটিকস বিক্রি করেছিলেন। তিনি ডোর টু ডোর সেলসম্যান হিসাবে কাজ করেছিলেন। তাঁর বলিউড যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৮০ এর দশকের শেষদিকে একজন ব্যাকগ্রাউন্ড ড্যান্সার হিসেবে। ২১ বছর বয়সে, লন্ডনে ১৯৯২ সালের ওয়ার্ল্ড ডান্স চ্যাম্পিয়নশিপে তিনি চতুর্থ স্থানে ছিলেন। তিনি নিজের পুরস্কারের অর্থটি মুম্বাইয়ে নিজের ডান্স একাডেমি তৈরীর কাজে লাগিয়েছিলেন। তাঁর শিক্ষার্থীদের প্রায়শই প্রধান চলচ্চিত্র নির্মাতারা বেছে নিতেন।

জনি লিভার:- জনি লিভার, যার আসল নাম জন রাও প্রকাশ রাও জানুমালা। তিনি মুম্বাইয়ের ধরভির সরু গলিতে মানুষ হয়েছিলেন। তাঁর বাবা হিন্দুস্তান ইউনিলিভার লিমিটেডে একজন অপারেটর হিসাবে কাজ করতেন। তিনি যা উপার্জন করেছিলেন তা তিন বোন এবং দুই ভাইয়ের সাথে জনি পরিবারকে ধরে রাখতে খুব সামান্য ছিল। সপ্তম শ্রেণী থেকে পড়তে পড়তে তাকে স্কুল ছাড়তে হয়। পরিবারের চাহিদা মেটাতে অদ্ভুত পেশা বেছে নিতে হয় তাকে। তিনি কলম বিক্রি করতেন মুম্বাইয়ের রাস্তায় নাচতেন এবং বলিউড অভিনেতাদেরও নকল করতেন । এইভাবে তার পরিবারের জন্য প্রতিদিনের রুটি এবং মাখন উপার্জনের অর্থ জোগাড় করতেন।

দীর্ঘ ৬ বছর পর এসব কাজ ছেড়ে তিনি কমিক হিসাবে কাজ শুরু করার সাথে সাথেই সাফল্য অর্জন করেন। তিনি অর্কেস্টারে স্ট্যান্ড-আপ কমেডি শো করেছেন এবং কল্যাণজি-আনন্দজি গ্রুপে যোগদানের সুযোগ গ্রহণ করেছিলেন। তিনি শেষ পর্যন্ত জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে তার প্রতিভা জন্য পরিচিত ছিলেন। জাহ্নি তুম পার হুম কুরবান দিয়ে ইন্ডাস্ট্রিতে প্রথম ব্রেক পেলেন। ছবিটির শুটিং চলাকালীন অভিনেতা-পরিচালক সুনীল দত্ত তাঁর প্রতিভা দেখে অবাক হয়েছিলেন এবং ১৯৮২ সালে তাঁর চলচ্চিত্র ‘ “ডর কা রিশতা” ছবিতে তাকে অভিনয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

এইভাবে একের পর এক খ্যাতনামা অভিনেতা অভিনেত্রীরা বলিউডে নিজের স্থানকে পাকাপো’ক্ত করতে জীবন ধরে সংগ্রাম করে গিয়েছেন। আজ তারা সাফল্যের মুখ দেখলেও অতীতের কথা শুনলে বেশ আশ্চর্য হতে হয়।

About admin

Check Also

বিহারের প্রত্যন্ত গ্রামের 21 বছরের এই মেয়েটি, গুগলের 60 লাখ টাকা প্যাকেজের চাকরি পেল। শুভেচ্ছা বার্তা সোশ্যাল মিডিয়ায়

আগেকার দিনে মেয়েদের পরিধি রান্নাঘর আর বাড়ির কাজের মধ্যেই সীমিত ছিল। পড়াশোনাতে মেয়েদের কোনো অধিকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *