Breaking News

দেশের এই মন্দির গু’লোতে মহাদেব আজও বিরাজ করেন! এই অলৌকিক ঘটনার সত্যতা জানলে আপনার গায়ে কাঁটা দেবে

দেশজুড়ে শিবের সাথে সম্পর্কিত অনেক বিখ্যাত মন্দির রয়েছে। যেখানে প্রচুর ভক্তের সমাগম হয়।এই মন্দিরে লোকেরা ভগবানের আশীর্বাদ পেতে দূর-দূরান্ত থেকে আসেন।দেশে অনেক জায়গায় ভগবান শিবের অনেক বিখ্যাত মন্দির রয়েছে যার মহত্ত্ব সম্পর্কে অনেকের জানা নেই।তবে আপনি আমাদের এই প্রতিবেদন থেকে জানতে পারবেন।এই মন্দির গু’লির নিজস্ব একটি বিশেষত্ব রয়েছে।

যার কারণে দেশ বিদেশ এবং বিদেশের লোকেরা মন্দিরগু’লি সম্পর্কে জানুন। আজ আমরা আপনাকে শিবের এমন মন্দিরগু’লি সম্পর্কে অবহিত করতে যা যা বিশ্বজুড়ে তাদের বিশেষত্বের জন্য বিখ্যাত। তবে বেশিরভাগ মানুষ এই মন্দিরগু’লির ইতিহাস সম্পর্কে জানেন না। শিবের অলৌকিক ও বিখ্যাত মন্দিরটি বৃন্দাবনে অবস্থিত, যা গোপেশ্বর মন্দির নামে পরিচিত।

এই মন্দির সম্পর্কে বলা হয় যে এখানে একবার এখানে রয়েছে রাধা ও শ্রী কৃষ্ণ মহারাস করছিলেন। তিনি গোপীদের নির্দেশ দিয়েছিলেন যে এই স্থানে কোনও পুরুষ না আসা উচিত, কিন্তু একই সাথে দেবাদীদেব মহাদেব তাদের সাথে দেখা করতে এসেছিলেন। গোপীরা কৃষ্ণ-রাধার দেওয়া আদেশ অনুসরণ করেছিলেন। বাইরে গিয়ে শিবকে থামিয়ে দিলেন।

গোপীরা ভোলেনাথকে বলেছিলেন যে আপনি কেবল একজন মহিলা হিসাবে প্রবেশ করতে পারবেন। তখন মহাদেব গোপীর রূপ নিয়েছিলেন এবং ভাগ হয়ে যান। এই মন্দিরটির নামকরণ করা হয়েছে গোপেশ্বর মহাদেব মন্দির। যখন থেকে শ্রী কৃষ্ণ জিৎ মহাদেবকে স্বীকৃতি দিয়েছিলেন। দেব শিবের রঙ্গেশ্বর মন্দিরটি অত্যন্ত অলৌকিক বলে মনে করা হয়।

বলা হয় যে এখানে সমস্ত ধরণের দর্শন এবং পূজা বলা হয়। জনগণের ঝামেলা দূরে যায়, রাঙ্গেশ্বর মহাদেব মন্দিরে খপ্পর। জেহের উপাসনা বিশেষ গুরুত্ব হিসাবে বিবেচিত হয়, মহা শিবরাত্রির পরে অমাবস্যা এখানে সদ্য বিবাহিত মহিলা হিসাবে উদযাপিত হয়। পুত্রসন্তানের জন্য মহিলারা উপাসনা করেন।এই মন্দিরে বলা হয়েছে যে কংসকে হ’ত্যা করার পরে ভগবান শ্রী কৃষ্ণ ও বলরামের মধ্যে ল’ড়াই হয়েছিল।

উপাখ্যান অনুসারে দেবদেবতার দেবতা মহাদেব এখানে হাদিস থেকে উপস্থিত হয়েছিলেন। কথিত আছে যে শ্রীকৃষ্ণ জোর করে কামশাকে প্রতা’রণা ও বলরামকে হ’ত্যা করেছিলেন।এই কথার পরেও বলা হয় যে ভোলেনাথ যে স্থানটিতে উপস্থিত হয়েছিল। রাঙ্গেশ্বর মহাদেব মন্দিরটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঈশ্বরের দেবতা মহাদেবের একটি বিখ্যাত মন্দির নন্দ গ্রামে অবস্থিত।যাকে অশ্বেশ্বর মন্দির বলা হয়।এই মন্দির সম্পর্কে বলা হয় যে ভগবান শিব এখানে শ্রীকৃষ্ণকে দেখতে এসেছিলেন।

যখন বাসুদেব তাঁর পুত্র শ্রী কৃষ্ণ জিয়াকে নন্দের সাথে রেখেছিলেন এবং তখন ভগবান শিব ভগবান শ্রী কৃষ্ণকে দেখতে আগ্রহী ছিলেন। তখন তিনি এখানে যোগীর রূপ ধারণ করেছিলেন এসে মাতা যশোদা কে ভগবান কৃষ্ণকে দেখতে বলেছিলেন। কিন্তু যশোদা মাতা তাঁর লালদর্শন করতে অস্বীকার করেছিলেন।কিন্তু যশোদা কৃষ্ণকে দেবার আগ পর্যন্ত ভগবান শিব সেখান থেকে যান নি। দর্শনা করেই দর্শনা করা হয়নি শেষ পর্যন্ত যশোদার শ্রীকৃষ্ণ জিয়ার দর্শন করতে হয়েছিল।

About admin

Check Also

23 বছরের এই ভাই-বোনের জুটি 1 লাখ টাকা ইনভেস্ট করে যে অভিনব উপায়ে আজ 800 কোটি টাকার ব্যবসা দার করান, জানলে আপনিও অনুপ্রাণিত হবেন

একটি মেয়ে তার ভাইয়ের সাথে মিলে নিজেদের পরিবারকে সফলতার সেই শিখরে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছেন যা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.